ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কন্যা শিশুদের সংগ্রাম ও সফলতার গল্প শোনালেন বরেণ্য আবৃত্তিশিল্পী রোকেয়া দস্তগীর

স্টাফ রিপোর্টার : ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কন্যা শিশুদের সামনে কন্যা শিশু হিসাবে নিজের সংগ্রাম ও সফলতার গল্প শোনালেন বরেণ্য আবৃত্তিশিল্পী, প্রশিক্ষক ও স্কুল শিক্ষক রোকেয়া দস্তগীর। “কন্যাশিশুর অগ্রযাত্রা, দেশের জন্য নতুন মাত্রা” প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে বিশ্ব শিশু দিবস ও শিশু অধিকার সপ্তাহ উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে গল্প শোনান তিনি। ১১ অক্টোবর শুক্রবার সকাল ৯ টায় জেলা পরিষদ চত্বরে বাংলাদেশ শিশু একাডেমি এ কর্মসূচির আয়োজন করে। এসময় অন্যান্য কর্মসূচির মধ্যে ছিলো কন্যা শিশু সমাবেশ, তাদের মধ্যে দেশের গান প্রতিযোগিতা, আলোচনা, পুরস্কার বিতরণী ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। আলোচনা সভায় জেলার প্রতিষ্ঠিত নারী ব্যক্তিত্ব বিশিষ্ট শিশু সংগঠক, স্কুল শিক্ষক হিসাবে তিতাস আবৃত্তি সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ও বর্তমান সমন্বয়ক বরেণ্য আবৃত্তিশিল্পী ও প্রশিক্ষক রোকেয়া দস্তগীর তাঁর প্রতিষ্ঠিত হওয়ার, এগিয়ে চলার সংগ্রাম ও সফলতার গল্প শোনান। জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা মাহ্ফুজা আখতারের সভাপতিত্বে শিশু শিল্পী নাহিয়ান জারিন স্বর্ণার উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানে উদ্বোধক ছিলেন সাহিত্য একাডেমির সভাপতি দেশবরেণ্য কবি জয়দুল হোসেন। প্রধান অতিথি ছিলেন বিশিষ্ট নারী সংগঠক শ্রীমতি নন্দিতা গুহ । অনুষ্ঠানে সফল নারী ব্যক্তিত্ব রোকেয়া দস্তগীরকে ফুলেল শুভেচ্ছা ও উত্তরীয় পরিয়ে দেন প্রধান অতিথি শ্রীমতি নন্দিতা গুহ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন শিশু একাডেমির লাইব্রেরিয়ান মো. বদিউজ্জামান। এসময় শিশু একাডেমির শিক্ষক-প্রশিক্ষকবৃন্দ এবং শিশুদের অভিভাবকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। পুরস্কার বিতরণ শেষে শিশুরা মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে নন্দিতা গুহ বলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আবৃত্তির প্রসারে রোকেয়া দস্তগীর অগ্রণী ভূমিকা পালন করে চলেছেন। একজন সাহসী সংস্কৃতিকর্মী হিসাবে তিনি এ শহরের অনেক বড়ো বড়ো সাংস্কৃতিক উৎসব আয়োজনেও অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন। বাঙ্গালি সংস্কৃতির লালন ও বিকাশে সে আমাদের যোগ্যতম সহযোদ্ধা। শিশু একাডেমি আজ তাকে সম্মানিত করে আমাদের সকল নারীকেই সম্মানিত করলো।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন