করোনাভাইরাসে জনগণের সেবায় সকল জনপ্রতিনিধিদের পিপিই পাওয়ার প্রত্যাশা

স্টাফ রিপোর্টার: ‍করোনাভাইরাস প্রাণঘাতী থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য বিশ্বের সকল দেশের মানুষই আজ কোণঠাসা রয়েছে। করোনা আক্রান্ত হওয়ার ভয়ে কেউ ঘর থেকে বের হচ্ছে না। এর মাঝে সবচেয়ে ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছেন ডাক্তার, পুলিশ, জেলা প্রশাসন, সাংবাদিক।

তারা সকলেই জনসম্মুখে থেকে নিজের জীবন ঝুঁকি নিয়ে জনগণের সেবা দিয়ে যাচ্ছে। এর থেকে পিছিয়ে নেই দেশের সকল উপজেলা, ইউপি চেয়ারম্যান, মেম্বারগণ। তারাও জনগণের সেবায় খাদ্য নিরাপত্তা প্রদানের জন্য সর্বদাই নিজেদের জীবন ঝুঁকি নিয়ে জনগণের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে দিচ্ছেন সরকারি খাদ্যসামগ্রী। ফলে জনপ্রতিনিধিগণও আতঙ্কের মধ্যেই রয়েছেন।

এ বিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সুহিলপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আজাদ হাজারী আঙ্গুর জানান, করোনা প্রাদুর্ভাবের যুদ্ধে আমরা জয়ী হব ইনশাআল্লাহ। এই যুদ্ধে জয়ী হবার জন্য যা যা করা প্রয়োজন আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা তাই করছেন, যা প্রশংসার সকল দাবীদার তিনি নিজেই, তাঁর মত একজন বিচক্ষণ প্রধানমন্ত্রী পেয়ে আমরা বাঙালি জাতি সত্যিই গর্বিত। আমরা যারা জনপ্রতিনিধি বিশেষ করে ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বার যারা তাদের মধ্যে অনেকেই হোম কোয়ারেন্টাইনে আছে জানতে পারলাম।

তিনি বলেন, আমাদের দেশের ডাক্তাররা জীবন বাজি রেখে করোনা ভাইরাস আক্রান্তদের চিকিৎসা করে যাচ্ছেন তাদের প্রতি কৃজ্ঞতা জানাই। তাদেরকে কারো সাথে তুলনা করে ছোট করতে চাইনা। ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও মেম্বারগন জনগণের কাছাকাছি থেকে জীবন বাজি রেখে কাজ করে যাচ্ছে। আমাদের নেই কোন পিপিই, নেই কোন জীবনের ঝুঁকি ভাতা, এমন কি মৃত্যু ভাতাও। আমরা চেয়ারম্যানরা সরকারি নির্দেশ মতে যখন যা নির্দেশ দিচ্ছে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছি এবং করব ইনশাল্লাহ। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সদর উপজেলার চেয়ারম্যানগণ আমাদের মাননীয় সংসদ সদস্য র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এম পি মহোদয়ের ও নির্দেশ মোতাবেক জনগণের পাশে থেকে কাজ করছি।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন