আগামী বাজেট হবে গরিবদের সুরক্ষার বাজেট বলে জানান অর্থমন্ত্রী

9

সামনে ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেট। এই বাজেট তৈরিতে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের হাতে সময় আছে আর মাত্র দুই মাস। চিন্তিত অর্থমন্ত্রী। প্রতি বছর বাজেটের আকার বাড়ে ১২ থেকে ১৮ শতাংশ। আগামী বাজেটেও কি তাই বাড়বে? এখন যে চলছে বৈশ্বিক মহামারি-যার প্রভাবে বাংলাদেশসহ সবার অর্থনীতিই চুরমার হয়ে যাচ্ছে। তাহলে করণীয় কি? তা জানতেই অর্থমন্ত্রী বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির ও তার সচিবদের নিয়ে আজ মঙ্গলবার বৈঠকে বসেছিলেন।

 

আজ বুধবার অর্থনীতিবিষয়ক ও ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠক শেষে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

এক প্রশ্নের উত্তরে কামাল বলেন, এ বছর ৩৩ লাখ ৩৯ হাজার পরিবারকে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে এককালীন দুই হাজার ৫০০ টাকার ঈদ উপহার সুবিধাভোগীদের কাছে পৌঁছানোর ক্ষেত্রে কোনো অসুবিধা হবে না। সুবিধাভোগীদের কাছে নগদ টাকা সরাসরি পৌঁছানোর ক্ষেত্রে কোনো সমস্যা যেন তৈরি না হয়, এ জন্য গত বছরের অভিজ্ঞতা কাজে লাগানো হচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘যারা প্রধানমন্ত্রীর নগদ টাকার ঈদ উপহারের সুবিধাভোগী তারা সবাই প্রযুক্তি ব্যবহার উপযোগী নন। এ কারণে অনেক ক্ষেত্রে টাকা পেতে বেশি সময় লাগবে, তবে সেটা কিন্তু বড় সমস্যা নয়। সুবিধাভোগীরা যেন সরাসরি নগদ অর্থ পায়, সেটা নিশ্চিত করতে আমরা নিরলস কাজ করছি।

অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, চলমান মেগা প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন ও অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা দেরি হওয়ার কারণে বেসরকারি বিনিয়োগ প্রত্যাশিত মাত্রায় অর্জিত না হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। হোটেল-রেস্তোরা, পরিবহন এবং আকাশপথে যোগাযোগের খাতও বিপদে পড়েছে। এ খাতগুলোর ওপর ইতিমধ্যেই বিরূপ প্রভাব পড়েছে। অন্যান্য দেশের মতো বিরূপ প্রভাব পড়েছে দেশের শেয়ারবাজারেও। এদিকে বিশ্বব্যাপী জ্বালানি তেলের চাহিদা কমেছে। এর বিরূপ প্রভাব পড়তে শুরু করেছে প্রবাসী আয়ের (রেমিটেন্স) ওপরও।

তবে অর্থমন্ত্রী প্রবাসী আয় নিয়ে অতটা হতাশ নন বলে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়। যুক্তি হিসেবে অর্থমন্ত্রী বলেন, যেহেতু গত আট মাসে প্রবাস আয়ে ২১ শতাংশের মত প্রবৃদ্ধি ছিল, সেহেতু আগামী চারমাসে তা কিছুটা কম হলেও অর্থবছর শেষে আগের অর্থ বছরের তুলনায় কম হবে না বলে আশা করা যায়।

বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে এবং ইতিমধ্যেই নিম্ন-মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে। গত অর্থবছরে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৮ দশমিক ১৫ শতাংশ। চলতি অর্থবছরে ৮ দশমিক ২০ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জনের দিকে এগোলেও প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস জনস্বাস্থ্যসহ বৈশ্বিক অর্থনীতির উপর নেতিবাচক থাবা বসাতে যাচ্ছে। সবাই জানেন, বাংলাদেশও এই নেতিবাচক প্রভাব থেকে মুক্ত নয়-এসব কথাও বলেন অর্থমন্ত্রী।

এখন পর্যন্ত কী করা হয়েছে

মুস্তফা কামাল বলেন, আমাদের সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার মানুষকে এই প্রাণঘাতী ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে রক্ষা করা। পাশাপাশি প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর প্রয়োজনীয় আহারের ব্যবস্থা করা। সরকারের পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত কী করা হয়েছে, তার একটি চিত্রও তুলে ধরেন অর্থমন্ত্রী। বলেন, দেরি না করেই স্বল্পমেয়াদি ও মধ্যমেয়াদি পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, অর্থমন্ত্রী বলেন, অর্থনীতিতে বিরূপ প্রভাব মোকাবিলায় এরই মধ্যে সরকারি ব্যয় বৃদ্ধি, আর্থিক সহায়তার প্যাকেজ প্রণয়ন, সামাজিক সুরক্ষা কার্যক্রমের আওতা বৃদ্ধি ও মুদ্রার সরবরাহ বৃদ্ধি করা হয়েছে। অর্থ বিভাগের অপ্রত্যাশিত ব্যয় ব্যবস্থাপনা খাত থেকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে দেওয়া হয়েছে ২৫০ কোটি টাকা।

বাংলাদেশ ব্যাংক ব্যবসায়-বান্ধব কিছু উদ্যোগ নিয়েছে। যেমন-আগামী জুন মাস পর্যন্ত কোন গ্রাহক যদি কিস্তি পরিশোধে অপরাগও হন, তারপরও তাকে ঋণ খেলাপি না করার ঘোষণা দিয়েছে। এনজিওগুলোর গ্রাহকদের ক্ষেত্রেও জুন পর্যন্ত কিস্তি পরিশোধে অপরাগ হলে ঋণ খেলাপি করা হবেনা।

রপ্তানি আয় আদায়ের সময়সীমা ২ মাস থেকে বৃদ্ধি করে ৬ মাস করা হয়েছে। একইভাবে আমদানি ব্যয় মেটানোর সময়সীমা ৪ মাস থেকে বৃদ্ধি করে ৬ মাস করা হয়েছে। মোবাইলে ব্যাংকিংয়ে আর্থিক লেনদেনের সীমা বাড়ানো হয়েছে।

শিল্প উৎপাদন এবং রপ্তানি বাণিজ্যের আঘাত মোকাবিলায় কিছু আপৎকালীন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে এবং রপ্তানিমুখী শিল্প প্রতিষ্ঠানের জন্য এরই মধ্যে ৫ হাজার কোটি টাকার একটি প্রণোদনা প্যাকেজের ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে জানান অর্থমন্ত্রী।

আরও কী করা হবে

অর্থমন্ত্রী বলেন, রপ্তানীমুখী শিল্প, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প এবং কুটিরশিল্পবিরূপ প্রভাব মোকাবিলায় আরও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা হাতে নেওয়া হবে। অব্যাহত থাকবে বিনামূল্যে ভিজিডি, ভিজিএফ এবং ১০ টাকা কেজি দরে চাল সরবরাহ কর্মসূচি। ‘ঘরে-ফেরা’কর্মসূচির আওতায় নিম্নআয়ের ব্যক্তিদের নিজ নিজ গ্রামে ফিরে যেতে সহায়তা দেওয়া হবে। গৃহহীন ও ভূমিহীনদের জন্য দেওয়া হবে বিনামূল্যে ঘর ৬ মাসের খাদ্য এবং নগদ অর্থ।

জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল আজ রাতে মোবাইল ফোনে প্রথম আলোকে বলেন, ‌‘করোনাভাইরাসের প্রভাব মোকাবিলায় আমরা প্রয়োজনীয় সব উদ্যোগ নেবা। এখন দরকার সবারই ঘরে থাকা। এ যুদ্ধ আমরা মোকাবিলা করবই।’

আগামী বাজেট নিয়ে জানতে চাইলে মুস্তফা কামাল বলেন, ‌‘বিশ্বব্যাংক, এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি), আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ), ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংকসহ (আইডিবি) সব উন্নয়ন সহযোগীর কাছেই আমরা অর্থ সহায়তা চাইব।’

 

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন